Gobindobhog Rice: গোবিন্দভোগ চালের রফতানি শুল্কে ছাড় দিন, মোদীকে আর্জি-চিঠি মমতার 

'গোবিন্দভোগ' (Gobindobhog Rice) নামেই তার ব্যবহারের উল্লেখ রয়েছে। শুধু গোবিন্দ বা কৃষ্ণের ভোগ নয়, দেবতার নৈবেদ্য হিসাবেও এই সুগন্ধী চালের কদর সর্বত্র। শুধু আরাধ্য দেবতার ভোগেই এর ব্যবহার সীমাবদ্ধ নয়। মাঝেমধ্যে এক-আধদিন আয়েশ করে গোবিন্দভোগের খিচুড়ি কিংবা পায়েস অমৃত সমান। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশেও ভালো ব্যবসা করছিল বাংলার গোবিন্দভোগ চাল (Gobindobhog Rice)। কিন্তু কেন্দ্র সম্প্রতি ২০ শতাংশ রফতানি শুল্ক চাপানোয় সেই উদ্দেশ্য বাধা পাচ্ছে। এমত অবস্থায় নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। 

Gobindobhog Rice: গোবিন্দভোগ চালের রফতানি শুল্কে ছাড় দিন, মোদীকে আর্জি-চিঠি মমতার 
ছবিটি সংগৃহীত

কলকাতা: বাংলার সুগন্ধী গোবিন্দভোগ চালে (Gobindobhog Rice) রফতানি শুল্ক মুকুবের আর্জি জানিয়ে নরেন্দ্র মোদীকে (Narendra Modi) চিঠি লিখলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। প্রধানমন্ত্রীকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার অনুরোধ করে চিঠিতে মমতা লেখেন, গোবিন্দভোগ চালের রফতানিতে কেন্দ্র ২০ শতাংশ শুল্ক চাপানোয় বাংলার কৃষকরা আর্থিক ভাবে মার খাচ্ছেন।  বাংলার কৃষকদের স্বার্থ রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী যেন প্রয়োজনীয় নির্দেশিকা জারি করেন।

বাংলার হাতেগোনা কয়েক'টি জেলায় সেরা গুণমানের গোবিন্দভোগের চাষ হয় (Gobindobhog Rice)। ২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশন (জিআই) স্বীকৃতি পেয়েছে গোবিন্দভোগ চাল।  এটি অন্যান্য চালের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য, এমএসপির চেয়ে এর দাম অনেকটাই বেশি।

ALSO READ| ডেঙ্গি-ফাইলেরিয়াসিস ঠেকাতে তেচোখো মাছেই আস্থা গবেষকদের

চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেন, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান, কাতার, বাহারিন, কুয়েত ও অন্যান্য উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলিতে বাংলার গোবিন্দভোগ চালের চাহিদা রয়েছে। রাজ্য সরকার গোবিন্দভোগ চালের চাষে কৃষকদের উত্‍‍‌সাহিত করে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত, ভারত সরকারের এক নোটিফিকেশনে (৮ সেপ্টেম্বর, 2022) গোবিন্দভোগ চালের উপর ২০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। মমতা চিঠিতে উল্লেখ করেন, বাসমতির মতোই গোবিন্দভোগ চালের রফতানির ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ শুল্ক ছাড় দেওয়া উচিত।

ALSO READ| Ramkumar Chatterjee। আমার সংগীত গুরু রামকুমার চট্টোপাধ্যায়