Jharkhand Lawyer: আইনজীবী রাজীব কুমারের আয়ের উত্‍‌স খোঁজে রাঁচিতে তল্লাশি কলকাতা পুলিশের 

গত সোমবার ৫০ লক্ষ টাকা-সহ কলকাতার এক শপিংমল থেকে গ্রেফতার হন রাঁচির আইনজীবী (Jharkhand Lawyer) রাজীব কুমার (Lawyer Rajeev Kumar)। বিশেষ সূত্রে খবর পেয়ে হেয়ার স্ট্রিট থানার পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে।

Jharkhand Lawyer: আইনজীবী রাজীব কুমারের আয়ের উত্‍‌স খোঁজে রাঁচিতে তল্লাশি কলকাতা পুলিশের 

কলকাতা: প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার ঝাড়খণ্ডের আইনজীবী (Jharkhand Lawyer) রাজীব কুমারের (Lawyer Rajeev Kumar) বিপুল সম্পত্তির হদিশ পেল কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। ওই আইনজীবীর খাসতালুক রাঁচির একাধিক ঠিকানায় হানা দেন গোয়েন্দা আধিকারিকরা। তাতেই এই সম্পত্তির খোঁজ মেলে। পাওয়া গিয়েছে একটি কালো ডায়েরিও। একাধিক লেনদেনের তথ্য লেখা রয়েছে ডায়েরিটিতে। জনস্বার্থ মামলা প্রত্যাহারের জন্য আদায় করা টাকার হিসাব লিখে রাখতেন এই ডায়েরিতে। এ ছাড়াও রাজীব কুমারের (Lawyer Rajeev Kumar) মোবাইল ও ল্যাপটপ থেকেও বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি পেয়েছে পুলিশ।

গত সোমবার ৫০ লক্ষ টাকা-সহ কলকাতার এক শপিংমল থেকে গ্রেফতার হন রাঁচির আইনজীবী রাজীব কুমার। বিশেষ সূত্রে খবর পেয়ে হেয়ার স্ট্রিট থানার পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে। রাঁচি হাইকোর্টে কলকাতার এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে জনস্বার্থ মামলা প্রত্যাহারের জন্য ১০ কোটি টাকা দাবি করেছিলেন ওই আইনজীবী। দরাদরিতে শেষ পর্যন্ত ১ কোটি টাকায় রফা হয়। রফার কিস্তি বাবদ ৫০ লক্ষ টাকা নিতে এসে হাতেনাতে ধরা পড়েন রাজীব কুমার।

পুলিশের দাবি, বিভিন্ন জনের বিরুদ্ধে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করে ভয় দেখিয়ে মোটা অর্থ আদায় করাই পেশা রাজীব কুমারের। ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের বিরুদ্ধেও একাধিক জনস্বার্থ মামলা তিনি দায়ের করেছেন। ওই আইনজীবীর বিরুদ্ধে তদন্ত করতে নেমে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য পাচ্ছেন কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা।

ঝাড়খণ্ডের একাধিক থানায় রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে। ঝাড়খণ্ড পুলিশ তাঁর সন্ধান শুরু করলে, কলকাতায় পালিয়ে আসেন রাজীব কুমার। ঝাড়খণ্ড পুলিশের খবরের ভিত্তিতে হেয়ার স্ট্রিট থানার পুলিশ ও লালবাজারের গোয়েন্দা বিভাগের গুন্ডা দমন শাখার আধিকারিকরা ওই ব্যক্তির সন্ধান শুরু করেন। রবিবার রাতে শপিংমল থেকে গ্রেফতার করা হয়।

ALSO READ| Jharkhand Case-CID: ঝাড়খণ্ড কাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য, এর আগেও নগদ ৭৫ লক্ষ লেনদেন হয়েছে কলকাতায়

ওই আইনজীবীকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতেই শুক্রবার রাঁচির তিনটি ঠিকানায় হানা দেয় লালবাজারের গোয়েন্দা বিভাগ। একটি কালো ডায়েরি ছাড়াও আইনজীবীর বিপুল সম্পত্তিরও হদিশ মিলেছে। ওই আইনজীবীর রাঁটিতেই ১৬টি ফ্ল্যাট ও একটি তিনতলা বাড়ি রয়েছে। নয়ডাতেও ফ্ল্যাট ও অফিসের সন্ধান মিলেছে। রাঁচি থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে ৭ একর জমিও তিনি সদ্য কিনেছেন।

ওই আইনজীবীর বিপুল আয়ের উত্‍‌সের খোঁজ চলছে। ঝাড়খণ্ডের সরকার ফেলার ষড়যন্ত্রে তিনিও যুক্ত কি না, তা-ও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

ALSO READ| BJP's Operation Lotus: ঝাড়খণ্ড কংগ্রেস বিধায়কের বিস্ফোরক দাবি, মন্ত্রিত্ব-সহ  ১০ কোটি টাকা অফার করে বিজেপি