দুই পথ কুকুরের রক্তদানে প্রাণে বাঁচল পথেরই অপর দুই সারমেয়

সিউড়িতে রয়েছে ‘নির্বাকন্ন’ নামে পশুদের নিয়ে কাজ করা একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। সেই সংস্থার সদস্যরা রামপুরহাট ও সাঁইথিয়ার রাস্তা থেকে দিনকয়েক আগে উদ্ধার করেছিল দু'টি অসুস্থ কুকুরকে। পশু হাসপাতালে চিকিৎসায় ধরা পড়ে প্রথমটির পায়ের ক্ষত গভীর হয়ে ক্যানসারের দিকে এগোচ্ছিল। অপরটির শরীরে ছিল বৃহদাকার টিউমার। অবিলম্বে দরকার ছিল অস্ত্রোপচারের।

দুই পথ কুকুরের রক্তদানে প্রাণে বাঁচল পথেরই অপর দুই সারমেয়
রক্তদান জীবন দান...

।। রাহুল হাজরা


সিউড়ি: রক্তদান জীবনদান, জানেন সকলেই। মানুষের রক্তদানে বহু মানুষ ফিরে পান প্রাণ। কিন্তু কুকুরের রক্তে প্রাণ ফিরে পাবে কুকুর? তা-ও আবার পথ কুকুর! বিশ্বাস করতে কষ্ট হবে অনেকেরই। কিন্তু হয়েছে তাই। দুই পথ কুকুরের রক্তদানে প্রাণ ফিরে পেয়েছে আরও দুই পথ কুকুর। এমনই ব্যতিক্রমী ঘটনার সাক্ষী হয়ে রইল সিউড়ি। আর এই অবলা সারমেয়দ্বয়ের জীবনরক্ষায় সেতু হয়েছেন এক সরকারি পশু চিকিৎসক ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা।

সিউড়িতে রয়েছে ‘নির্বাকন্ন’ নামে পশুদের নিয়ে কাজ করা একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। সেই সংস্থার সদস্যরা রামপুরহাট ও সাঁইথিয়ার রাস্তা থেকে দিনকয়েক আগে উদ্ধার করেছিল দু'টি অসুস্থ কুকুরকে। পশু হাসপাতালে চিকিৎসায় ধরা পড়ে প্রথমটির পায়ের ক্ষত গভীর হয়ে ক্যানসারের দিকে এগোচ্ছিল। অপরটির শরীরে ছিল বৃহদাকার টিউমার। অবিলম্বে দরকার ছিল অস্ত্রোপচারের।

পশু হাসপাতালের চিকিৎসক সৌরভ কুমার গত ২৪ অগস্ট প্রথম কুকুরটির সামনের বাঁ পা অস্ত্রোপচার করে বাদ দেন। ১ সেপ্টেম্বর অপর কুকুরটির দেহ থেকে টিউমার পৃথক করা হয়। দু'টি অস্ত্রোপচারেই প্রচুর রক্তক্ষরণ হয় কুকুর দু'টির দেহ থেকে। অস্ত্রোপচারের পর স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার অফিসে রেখেই চলছিল সারমেয় দু'টির শুশ্রূষা। কিন্তু অবিলম্বে প্রয়োজন পড়ে রক্তের। কারণ, এমনিতেই কুকুর দু'টি রক্তাল্পতায় ভুগছিল। তার উপর অস্ত্রোপচারে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। 

এমত অবস্থায় রক্তদানের ব্যবস্থা করতে গিয়ে বাধ সাধে দু-জায়গায়। প্রথমত, রক্ত মিলবে কোথায়? আর রক্ত সংগ্রহের ব্যাগই বা পাওয়া যাবে কী করে? কারণ, সরকারি বিধিনিষেধে রক্তের ব্যাগ জেলার পশু হাসপাতালে সরবারহ সম্ভব হয়নি। প্রশাসনের নানাস্তরে আর্জি জানিয়েও সেই ব্যাগ মেলেনি। তবে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্যরা খুঁজে খুঁজে রক্তদাতা হিসাবে জোগাড় করে ফেলেন ছ’টি পথ কুকুরকে। নানা চেষ্টা-চরিত্র করে রক্তের ব্যাগেরও ব্যবস্থা করা হয়। পুনার একটি সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে রক্তের ব্যাগ আনানো হয়।

ALSO READ। Shopping Mall: আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে বোলপুরে চলছে শপিংমল, প্রশাসন নীরব দর্শক

অবশেষে গত শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় প্রায় ৫ ঘণ্টা ধরে দুই পথ কুকুরের শরীর থেকে রক্ত নিয়ে অপর দুই পথ কুকুরকে রক্তদান করা সম্ভব হয়েছে। বিপন্মুক্ত কুকুর দু'টি। সিউড়ি পশু হাসপাতালের চিকিৎসক সৌরভ কুমার বললেন, ‘অস্ত্রোপচারের পর অসুস্থ কুকুর দু'টির শরীরে রক্তের পরিমাণ মাত্রাতিরিক্ত ভাবে কমে গিয়েছিল। অবিলম্বে রক্ত দিতে না পারলে বিপদের আশঙ্কা ছিল। রক্তদাতা হিসাবে যে কুকুরগুলিকে জোগাড় করা হয়েছিল, তাদের রক্তের মেজর ক্রস ম্যাচিং করার পর দু'টি কুকুর সক্ষম হয় রক্তদানে।' রাজ্যে পথ কুকুরদের রক্তদান সম্ভবত এই প্রথম বলেই তিনি দাবি করেন।

ALSO READ। দেবশ্রী চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ কৃষ্ণ কল্যাণীর, হুঁশিয়ারি, ১০ বিধায়ক বিজেপিতে থাকবে না

‘নির্বাকন্ন’ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সম্পাদক রাজর্ষি ঘোষ জানালেন, দীর্ঘদিন ধরেই তাঁরা পথ কুকুর নিয়ে কাজ করছেন। এমন একটা ভালো কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকতে পেরে তাঁদের ভালো লাগছে। রক্তদাতা ও রক্তগ্রহিতা চার সারমেয়ই এখন তাঁদের সদস্যদের যত্নআত্তিতে সুস্থ রয়েছে।