টিপু সুলতান 'নিখোঁজ'! দাদু বলছেন, 'পুলিশ তুলে নিয়ে গেছে', পুলিশ বলছে 'না' 

পুলিশ টিপু সুলতানকে আটক বা গ্রেফতারের কথা স্বীকার করেনি। ছেলে নিখোঁজের কারণ নিয়ে ধন্দে পরিবার। পুলিশ যদি নাই তুলে নিয়ে যায়, তা হলে পুলিশের উর্দি পরে, পুলিশের গাড়িতে কারা এসে তুলে নিয়ে গেল বিশ্বভারতীর প্রাক্তন এই ছাত্র টিপু সুলতানকে? 'কমিটি ফর দ্য রিলিজ অফ পলিটিক্যাল প্রিজনার্স' (সিআরপিপি)-এর অভিযোগ, এটা পুলিশেরই কাজ।

টিপু সুলতান 'নিখোঁজ'! দাদু বলছেন, 'পুলিশ তুলে নিয়ে গেছে', পুলিশ বলছে 'না' 

।। রাহুল হাজরা

বোলপুর: বিশ্বভারতীর প্রাক্তন ছাত্র মুস্তফা কামাল ওরফে টিপু সুলতানের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। বিশ্বভারতীর প্রাক্তন এই ছাত্রের দাদু দাবি করেন, মঙ্গলবার, মহাসপ্তমীর রাতে পুলিশ এসে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় টিপু সুলতানকে। সেসময় বাড়িতে দাদু-নাতি ছাড়া পরিবারের আর কেউ ছিলেন না। কিন্তু, পুলিশ টিপু সুলতানকে আটক বা গ্রেফতারের কথা স্বীকার করেনি। ছেলে নিখোঁজের কারণ নিয়ে ধন্দে পরিবার। পুলিশ যদি নাই তুলে নিয়ে যায়, তা হলে পুলিশের উর্দি পরে, পুলিশের গাড়িতে কারা এসে তুলে নিয়ে গেল বিশ্বভারতীর প্রাক্তন এই ছাত্রকে? 'কমিটি ফর দ্য রিলিজ অফ পলিটিক্যাল প্রিজনার্স' (সিআরপিপি)-এর অভিযোগ, এটা পুলিশেরই কাজ। বেআইনি ভাবে টিপু সুলতানকে তুলে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নামে আটকে রাখা হয়েছে। আইন মেনে, অবিলম্বে গ্রেফতারির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ধৃতকে আদালতে প্রেরণের দাবি জানিয়েছে সিআরপিপি।

টিপু সুলতানের দাদু অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ তাঁদের শান্তিনিকেতনের গুরুপল্লির বাড়ি থেকে টিপু সুলতানকে তুলে নিয়ে গিয়েছে শান্তিনিকেতন থানার পুলিশ। সেসময় বাড়িতে টিপুর বাবা-মা কেউ ছিলেন না। একমাত্র তিনি এবং টিপুই ছিলেন। টিপুর দাদুর কথা অনুযায়ী, মহাসপ্তমীর রাতে ৬-৭ জন পুলিশ বাড়িতে এসেছিল। এর মধ্যে চার জন সাদা পোশাকে ছিল। গাড়ি করে এসে টিপুকে বাড়ি থেকে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। উনি নাতিকে তুলে নিয়ে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে বলা হয়, কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করার আছে। পুলিশ বাড়ি পৌঁছে দেবে। এই প্রবীণের অভিযোগ, তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় নাতির গ্রেফতারির কারণ নিয়ে কিছু জানানো হয়নি। এমনকী কোনওরকম নোটিশও পুলিশের তরফে দেওয়া হয়নি।

নাতি রাতে বাড়িতে না ফেরায় বুধবার সকাল হতেই শান্তিনিকেতন থানায় ছোটেন বৃদ্ধ মানুষটি। শান্তিনিকেতন থানা থেকে দাবি করা হয়, মঙ্গলবার রাতে কাউকে তারা গ্রেফতার বা আটক করেনি। এর পর বোলপুর থানায় গেলেও একই কথা বলা হয়। নাতির খোঁজে সকাল থেকে একাধিকবার শান্তিনিকেতন থানায় গিয়েও টিপু সুলতানের হদিশ পাননি তাঁর দাদু।

বিশ্বভারতীর প্রাক্তন এই ছাত্রের বিরুদ্ধে অতীতে মাওবাদী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছিল। ২০১৯ সালে মাওবাদী সন্দেহে তাঁকে পশ্চিম মেদিনীপুরের গোয়ালতোড় থেকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশের টাস্ক ফোর্স। টিপুর খোঁজে সেসময় বিশ্বভারতীর হস্টেলে এসেও তল্লাশি চালিয়েছিল পুলিশ। পরে জামিনে ছাড়া পায়। গোয়ালতোড়ের পুরনো মামলায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে কি না, স্পষ্ট নয়। 

ALSO READ। নেপালের পাহাড়ি পথে বাস খাদে পড়ে মৃত ৩২, আহত ১৩

ঘটনা প্রসঙ্গে সিআরপিপি বলে, মঙ্গলবার রাতে পুলিশ বেআইনি ভাবে টিপু সুলতানকে গ্রেফতার করেছে। আমরা পুলিশের এই আচরণের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। টিপু সুলতানকে কোথায় রাখা হয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে কী অভিযোগ রয়েছে, পুলিশকে তা অবিলম্বে জানাতে হবে। আইন অনুযায়ী, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাঁকে আদালতে পেশ করতে হবে।

সম্প্রতি আদিবাসী এক শিশুর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিশ্বভারতীর দেওয়ালে মাওবাদীদের নাম করে পোস্টার সাঁটানো হয়। আদিবাসী শিশুটিকে খুনের আগে ধর্ষণ করা হয়েছিল বলে দাবি করে, পুলিশের নিস্পৃহতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। পোস্টারে এ-ও বলা হয়, মাওবাদ-ই একমাত্র পথ। সেই মাও পোস্টারের জেরেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ টিপু সুলতানকে তুলে নিয়ে গিয়েছে কি না, তা নিয়েও ধোঁয়াশার সৃষ্টি হয়।

এদিন সন্ধ্যায় যাবতীয় সন্দেহের নিরসন ঘটিয়ে বোলপুরের এসডিপিও অভিষেক রায় জানান, বোলপুর বা শান্তিনিকেতন থানার পুলিশ টিপু সুলতানকে গ্রেফতার করেনি। আর একটি সূত্রে খবর, গোয়ালতোড়ের পুলিশ এসেই গ্রেফতার করে নিয়ে গিয়েছে টিপুকে। যদিও এর সত্যতা নিশ্চিত করে কিছু জানা যায়নি।    

ALSO READ। পাল পাড়া বনাম মিত্র পাড়া